ঢাকা, রবিবার ২৬ মে ২০২৪, ১১:৪৮ পূর্বাহ্ন
ডেমরায় ভয়াবহ জলবদ্ধতায় গৃহবন্দি ডিএনডির অভ্যন্তরের লাখো মানুষ
মো. হারুন অর রশিদ, ডেমরা

ডেমরায় ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৬৬ ও ৬৭ নম্বর ওয়ার্ডের নিম্ন অঞ্চল  ভয়াবহ জলাবদ্ধতায়  গৃহবন্দি রয়েছে ডিএনডির অভ্যন্তরের লাখো মানুষ। গত ১০ দিন ধরেই আকাশ জুড়ে চলছে  সাদা-কালো মেঘের লুকোচুরি খেলা । আষাঢ়ের ৮ দিন পার হলেও নিয়মিত বর্ষণ কমেনি। তবে কখনো পরিষ্কার আকাশ আবার কখনো কালো মেঘের ভেলায় এসে নামছে বৃষ্টি। গত ৩ দিনের টানা বর্ষণে স্থায়ী জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। আর গত ৮ দিনের দফায় দফায় বৃষ্টিতে ডেমরার নি¤œ এলাকায় জলাবদ্ধতা বৃদ্ধি পেয়েছে কয়েকগুণ। জনজীবনে নেমে এসেছে চরম দূর্ভোগ।

সরেজমিনে দেখা গেছে, ডিএসসিসির ৬৬ নম্বর ওয়ার্ডের নি¤œাঞ্চলের পূর্ব-ডগাইর, ডগাইর গ্রীন সিটি এলাকা, সানারপাড়, পশ্চিম সানারপাড়, কোদালদোয়া দেইল্লা-বামৈল, মুসলিমনগর, মাতুয়াইল, সাইনবোর্ড ৬৭ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্ব-বক্সনগর, হাজী রোড এলাকা, আমতলা, পশ্চিম বক্সনগর ও মাকাশরোডসহ ওয়ার্ডের প্রতিটি নি¤œাঞ্চলেই ভয়াবহ জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। বর্ষনের পানিতে  তলিয়ে আছে এখানকার বহু রাস্তাঘাট, বাড়িঘর, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ-মাদ্রাসা, দোকানপাট, ফসলি জমি, নার্সারি, সবজী ক্ষেত, এমনকি মানুষের বসবাসের ঘরে পর্যন্ত পানি ঢুকে গিয়ে ভয়াবহ জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে দিনমজুর ও সাধারণ শ্রমজীবি মানুষেরা কোনো কাজে বের হতে পারছেন না। এতে করে সংসার, ঘর ভাড়া ও মাসের বাড়তি খরচ যোগান দিতে দু:চিন্তা ও হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েছে এসব নিন্ম আয়ের মানুষেরা।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, অতি বৃষ্টিত দূরের কথা সামান্য বৃষ্টিতেই এখানে মারাত্বক জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। অধিক জলাবদ্ধতায় পানিতে ডুবে মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছে এই এলাকায়। এদিকে ডেমরার বিভিন্ন নিচু এলাকাগুলোর অবস্থা খুবই নাজুক। তাছাড়া বর্ষনের পানির সাথে কলকারখানার ও বাড়িঘরের বর্জ্য পানি মিশে জলাবদ্ধতার কারণে বিভিন্ন পানিবাহিত রোগ ছড়াচ্ছে এলাকাবাসীর মধ্যে। কিন্তু বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে শিশু ও বৃদ্ধেরা। এদিকে আষাঢ়ের মাঝামাঝিতে জলাবদ্ধতা ভয়াবহ রূপ নিতে পারে বলে আশংকা করছে বাসিন্দারা।

এ বিষয়ে ডিএসসিসির ৬৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মতিন সাউদ বলেন, ওয়ার্ডের নি¤œাঞ্চলগুলোতে দ্রুত উন্নয়ন প্রয়োজন। আর এসব বিষয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের রয়েছে নানা পরিকল্পনা যা দ্রুত বাস্তবায়ন হয়ে যাবে। তবে প্রতিবছরের ন্যায় এবারও লাগাতার বৃষ্টিতে নি¤œাঞ্চলগুলোতে পানি জমে তলিয়ে গেছে কিছু এলাকা। সিদ্ধিরগঞ্জ পাম্প হাউস পানি থেকে পানি টানা হচ্ছে। জলাবদ্ধতার পানি চলে যাবে। তবে অতি বৃষ্টি হলে সমস্যা কিছুটা হতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x