ঢাকা, মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০১:৫৯ অপরাহ্ন
গ্রেনেড হামলায় পঙ্গু মামুন ভিক্ষা করে সংসার চালাচ্ছেন!
তাবারক হোসেন আজাদ, রায়পুর (লক্ষ্মীপুর)

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ঢাকার বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের মহাসমাবেশে গ্রেনেড হামলায় পঙ্গু মামুনুর রশিদ মানবেতর জীবন যাপন করছেন। দুই পা হারিয়ে লাঠির ওপর ভর করে সপ্তাহে দুদিন রায়পুর ও লক্ষ্মীপুর শহরে ভিক্ষা করে নিজের ও পঙ্গু মায়ের চিকিৎসা, তিন সন্তানের লেখাপড়ার খরচসহ সংসার চালাতে হচ্ছে তাকে।

এখনও মামুনকে সে দিনের নারকীয় স্মৃতি তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে। ১৭ বছর অতিবাহিত হলেও সে দিনের দুঃসহ স্মৃতি আজও কষ্ট দেয় তাকে। ২০১২ থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে নিহত ও আহত পরিবারগুলো প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত দুই থেকে দশ লাখ টাকা অনুদান পেলেও কেউ সাহায্যে এগিয়ে আসেনি।

মামুনুর রশিদ (৪৫) বাড়ি লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার লাহারকান্দি ইউনিয়নের আঠিয়াতলী গ্রামে। বর্বরোচিত এ গ্রেনেড হামলার সময় ঢাকার মেট্রোপলিটন পুলিশের বাসচালক ছিলেন তিনি।

শুক্রবার রায়পুর শহরে কথা হয় মামুনের সঙ্গে। তিনি জানান, ২০০২ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ঢাকা মেট্টোপলিটন পুলিশের গাড়ি চালাতেন। গাড়ি নং- ঢাকা মেট্রো চ-৭৫৭১, চ-৫২০২, চ-০০২২, লাইসেন্স নং- গপ-০৪৮৯৬২৮ ম এবং পরিচয়পত্র নং- ১৯৭৫৫৫১১৪৩৬০৭৪৯২২২।

মামুন জানান, ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট জনসভাস্থলে পুলিশের গাড়িতে দায়িত্ব পালন করছিলেন তিনি। এ সময় গ্রেনেড হামলার সঙ্গে সঙ্গে মাটিতে পড়ে গেলে মানুষের পায়ের তলায় পিষ্ট হয়ে মারাত্মক আহত হন। এতে তার কোমর, দুই পা, গোপনাঙ্গসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারাত্মক আঘাতপ্রাপ্ত হন। ওই সময় কয়েকজন ব্যক্তি তাকে উদ্ধার করে রাজারবাগ পুলিশ লাইন হাসপাতালে ভর্তি করে। কিন্তু উন্নত চিকিৎসা না পেয়ে তিনি বাড়ি ফিরে আসেন।

তিনি জানান, সুচিকিৎসা নিতে ২০০৯ সালের ১ ফেব্রুয়ারি লক্ষ্মীপুর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান রায়পুরের এমপি নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়নের সুপারিশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আর্থিক সাহায্যের জন্য আবেদন করলেও পাননি।

পঙ্গু মামুনুর রশিদ তার পঙ্গু মা, স্ত্রী, তিন সন্তান নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। নিরুপায় হয়ে ভিক্ষা করে তিন সন্তানের লেখাপড়া, নিজের ও পঙ্গু মায়ের চিকিৎসা ও সংসার চালাতে কষ্ট হচ্ছে তার। এজন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে সদর উপজেলার লাহারকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) আবদুস শহিদ জানান, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার সময় মারাত্মক জখম হয়ে পঙ্গু হন মামুন। এরপর তাকে ও তার মাকে ৬ মাস পরপর সরকারি ভাতা দেওয়া হচ্ছে। প্রয়োজনে তাকে ও তার পরিবারকে আরও সহযোগিতা করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x