ঢাকা, সোমবার ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৪২ অপরাহ্ন
ক্যানসারের কাছে হার প্রেমিকার, শেষ ইচ্ছায় হাসপাতালেই সিঁদুর দান
দৈনিক ডাক অনলাইন ডেস্ক

শ্বাস নিতে বড্ড কষ্ট হচ্ছিল মধ্য কুড়ির মেয়েটার ৷ ঠিক মতো কথাও বলতে পারছিলেন না ৷ অস্ফুট স্বরে কেবল বলেছিলেন শেষ ইচ্ছেটা ৷ বলেছিলেন, মনের মানুষটা যেন একটি বার তাঁর সিঁথিটা রাঙিয়ে দেন ৷ আর মনের মানুষের সেই কথা রাখতে কসুর করেননি সুব্রত ৷ দশ বছর ধরে তো এই দিনটার অপেক্ষাতেই ছিলেন তিনি ৷ মেয়ের কথা মতো, হাসপাতালের ইন্টেনসিভ কেয়ার ইউনিটেই হয়েছিল ব্যবস্থা ৷ সেখানেই মনের মানুষকে সিদুঁর পরিয়ে আপন করে নিয়েছিলেন ৷ কিন্তু, আটকে রাখতে পারলেন না ৷

মাত্র দু’ঘণ্টার মধ্যে সব বন্ধন ছেদ করে চলে গেলেন বীথি ৷ গল্প-উপন্যাস, সেলুলয়েডের পর্দাকে হার মানানো এ বৃত্তান্ত । ছোটোবেলার পরিচয় খুব সহজেই গাঢ় হয়েছিল ৷ ছোটো থেকেই স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছিলেন ৷ সদ্য যৌবনে পা রাখা দুটো মন নিজেদের মতো করে জীবন গড়ার স্বপ্ন দেখছিলেন। কিন্তু, হঠাৎ একটা খবর দমকা হাওয়ার মতো সব কিছুকে এলোমেলো করে দিল ৷ জানা গেল, মনের মানুষটা জটিল কর্কট রোগে আক্রান্ত ৷ ছোটো মেয়ের এমন অসুখের কথা শুনে প্রথমে নিজের কানকেও বিশ্বাস করতে পারেননি কালিপদ দাস

ভারতীয় রেলের কর্মী কালিপদবাবুর তিন মেয়ে, এক ছেলে। শিলিগুড়ির ডাবগ্রামের দাস বাড়ির ছোটো মেয়েটাকে দেখে ভালো লেগেছিল উত্তর দিনাজপুরের সুব্রত কুণ্ডুর ৷ সেই ভালোলাগা ভালোবাসায় পরিণত হতে খুব একটা সময় নেয়নি ৷ যখন যৌবনের দুটি হাত এক সঙ্গে অনেকটা পথ পাড়ি দেওয়ার স্বপ্ন দেখছিল, তখনই সামনে আসে বীথির অসুখের কথা ৷ শুরু হয় চিকিৎসা ৷ শুরু হয়েছিল কেমো থেরাপি ৷ যার জেরে মাথায় চুল প্রায় সবটাই উঠে যেতে থাকে

আস্তে আস্তে বুড়িয়ে যেতে থাকেন বীথি ৷ হারিয়ে যেতে থাকে যৌবনের সেই লাবণ্য ৷ তখন 2017 সাল৷ একটি হাতও কেটে বাদ দিতে হয় ৷ ফুটফুটে মেয়েটা নিজেকে গুটিয়ে নিতে থাকে সকলের কাছ থেকে ৷ কিন্তু, সে দিনও একটি বারের জন্য মনের মানুষটার কাছ থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখেননি পেশায় বেসরকারি সংস্থার কর্মী সুব্রত ৷ পাশে থেকেছেন, সাহস দেওয়ার চেষ্টা করেছেন ৷ হাতে হাত ধরে বলেছিলেন লড়াই করার কথা৷ চিকিৎসার প্রয়োজনে কখনও মুম্বই, কখনই শিলিগুড়ি যেতে হয়েছিল বীথিকে ৷

কখনই বীথিকে সঙ্গ ছাড়া করেননি সুব্রত ৷ প্রথমে না জানলেও ততদিনে সুব্রতর পরিচয় জানা হয়ে গেছে দাস পরিবারের সকলে ৷ এক দিন মেয়ের মোবাইলে চোখ পড়তেই সব স্পষ্ট হয়েছিল কালিপদ দাসের ৷ বোন ক্যানসারে আক্রান্ত মেয়ের ভবিষ্যৎ জানলেও সাহস পাননি বাধা দেওয়ার ৷কিন্তু, বাস্তব আর স্বপ্নের মধ্যে তফাতটা আকাশ-পাতাল ৷ মন শক্তি জোগানোর কথা বললেও, বীথির শরীর কিন্তু ধীরে ধীরে শেষ হয়ে আসছিল ৷ হাসপাতালে ভরতি করানো হয় তাঁকে ৷ গত শনিবার ঠিক মতো কথাও বলতে পারছিলেন না ৷ বারবার বুজে আসছিল চোখ দুটো

৷ চিকিৎসকরাও আশা ছেড়ে দিয়েছিলেন ৷ তখনই মুখফুটে শেষ ইচ্ছায় কথাটা বলেছিলেন বীথি ৷ মেয়ের সেই ইচ্ছাকেই মর্যাদা দেন তাঁর বাবা-মা ৷ আয়োজন করা হয় বিয়ের ৷ বীথির নাকে তখন অক্সিজেন মাস্ক ৷subrata-bithiসিঁদুরদানের পর হাসপাতালের বেডে সুব্রতর সঙ্গে বীথি ।স্বপ্ন পূরণের কিছু মুহূর্ত পড়েই বিছানায় ঢলে পড়েন বীথি ৷ তখনও একটা হাত সুব্রতর হাতে ধরা ৷ শরীরটা আস্তে আস্তে নিস্তেজ হয় পড়তে থাকে৷ চিকিৎসকরা শেষ চেষ্টা শুরু করার আগেই সব শেষ ৷ চোখের সামনেই বীথিকে শেষ বিদায় দিলেন সুব্রত৷ মেয়েকে হারালেও যেন একটা ছেলে পেলেন বীথির বাবা-মা ৷

 

তাঁরা বলেছেন, মেয়ের কঠিন সময় যে ভাবে সুব্রত পাশে ছিল, তা কথায় প্রকাশ করতে পারব না৷ মেয়েকে হারিয়েছি ৷ কিন্তু, এমন একটা ছেলেকে পাব ভাবতেও পারিনি ৷ আর সুব্রত! তখনও চোখের কোণায় চিক চিক করছে বিন্দুগুলো ৷ শত চেষ্টা করেও শেষ রক্ষা হল না ৷ কথা জড়িয়ে আসছে ৷ একটু যেন একলা থাকতে চাইছেন ৷ চার পাশের পরিবেশটা তখন সুব্রতর কাছে বড্ড অচেনা ৷ তখনও ভাবেননি কী করবেন ৷ বাকি জীবনটা কি একলাই কাটাবেন তিনি ! স্মৃতিটুকু সম্বল করে…🤍🖤

 

Tapas Ghoshal এর ওয়াল থেকে

One response to “ক্যানসারের কাছে হার প্রেমিকার, শেষ ইচ্ছায় হাসপাতালেই সিঁদুর দান”

  1. … [Trackback]

    […] Find More on on that Topic: doinikdak.com/news/47211 […]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x