ঢাকা, রবিবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৩, ০৫:৫৬ অপরাহ্ন
আত্রাইয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বন্ধ হয়ে গেল অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ
রুহুল আমিন, আত্রাই (নওগাঁ)

নওগাঁর আত্রাই নদীর ওপর নবনির্মিত সেতুর উত্তর পার্শে সরকারি জায়গা দখল করে স্থাপনা নির্মাণ কার্যক্রম স্থানীয় প্রশাসন বন্ধ করে দিয়েছে। স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল সেতু নির্মাণ কার্যক্রম শেষ হতে না হতেই সরকারি জায়গা দখল করে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের মহোৎসবে মেতে উঠে।

রাতারাতি তারা ইট বালু সিমেন্ট দিয়ে ঘর নির্মাণ শুরু করে। জানা যায়, আত্রাই রেলওয়ে স্টেশনের পশ্চিম পার্শে ইতোপূর্বে সরকারি জায়গা দখল করে বিশাল আকৃতির মার্কেট গড়ে তোলা হয়েছিল। পরবর্তীতে আত্রাই-নওগাঁ-নাটোর আঞ্চলিক মহা সড়কের কাজ শুরু হলে এসব অবৈধ স্থাপনা ভেঙে গুড়িয়ে দেয়া হয়। বর্তমানে আত্রাই নদীর উপর নবনির্মিত সেতুর কাজ শেষ হতে না হতেই এবং আঞ্চলিক মহাসড়কের কাজ শেষ না হতেই ওই জায়গাগুলোর ওপর আবারও লোলুপ দৃষ্টি পড়ে দখলদারদের। ফলে রাতারাতি তারা ইট বালু সিমেন্ট দিয়ে ঘর নির্মাণ শুরু করে। এদিকে ওই জায়গাগুলো যদি বেদখল হয়ে যায় তাহলে পথচারীসহ যানবাহন চরম ভোগান্তি পোহাতে হবে একটি সূত্র জানিয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় একজন ব্যবসায়ী বলেন, এ জায়গাগুলো যবর দখল করে দোকানঘর নির্মাণ করে মোটা অংকের টাকার বিনিময় অন্যদের নিকট হস্তান্তর করা হবে। এ মিশন বাস্তবায়নের জন্য ৯ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি তারা গঠন করেছেন। স্থানীয় সংসদ সদস্যের নাম ভাঙিয়ে তারা এসব জায়গা দখল করে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন। এদিকে ইতো পূর্বে এই সেতু নির্মাণের পর সেখানে জায়গা দখলের আগাম পরিকল্পনা নিয়ে দ্বন্দের জের ধরে ভরতেঁতুলিয়া গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক নামের এক যুবক খুনের শিকার হয়েছেন। তার রক্তের দাগ মুছতে না মুছতেই আবারও দখলদাররা সরকারি জায়গা দখলের মাহোৎসবে মেতে উঠেছে।

আত্রাই থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল কালাম আজাদ বলেন, এ জায়গাগুলো সড়ক ও জনপথ বিভাগের জায়গা। এগুলো কারও দখল করার এখতিয়ার নেই। বৃহত্তর স্বার্থে এই জায়গা উন্মুক্ত রাখা প্রয়োজন। আমরা যখন জানতে পেরেছি জায়গাগুলো বেদখল হয়ে যাচ্ছে। সাথে সাথে অভিযান চালিয়ে তাদের কাজ বন্ধ করে দিয়েছি। তিনি বলেন, গত কয়েকদিন আগে নওগাঁ সড়ক ও জনপথ বিভাগ থেকে এসব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের জন্য আমাদের নিকট চিঠিও এসেছে। আত্রাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ইকতেখারুল ইসলাম বলেন, দখলদার সে যেই হোক তাদেরকে উচ্ছেদ করে সরকারি সম্পত্তি রক্ষা করা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। আত্রাই সেতুর উত্তর পার্শের উম্মুক্ত এ জায়গা উম্মুক্ত থাকবে। এখানে কেউ অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করতে পারবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x