ঢাকা, মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪, ০২:৩৭ পূর্বাহ্ন
পবিত্র মাহে রমজানে ইতেকাফ এর ফজিলত
Reporter Name

ম‌োঃ কামাল উদ্দ‌িন ম‌ৌলভীবাজার: ‘ইতেকাফ’ আরবি শব্দ। এর অর্থ হলো অবস্থান করা, আবদ্ধ করা বা আবদ্ধ রাখা। ইসলামি পরিভাষায় ইতিকাফ হলো ইবাদতের উদ্দেশ্যে ইতিকাফের নিয়তে নিজেকে নির্দিষ্ট জায়গায় নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত আবদ্ধ রাখা। যিনি ইতেকাফ করেন, তাঁকে ‘মুতাকিফ’ বলে। আল্লাহ তাআলা বলেন: যখন আমি কাবা গৃহকে মানুষের জন্য সম্মিলন স্থল ও শান্তির আলয় করলাম, আর তোমরা ইব্রাহিমের দাঁড়ানোর জায়গাকে (মাকামে ইব্রাহিম) নামাজের জায়গা বানাও এবং আমি ইব্রাহিম ও ইসমাইলকে আদেশ করলাম, তোমরা আমার গৃহকে তওয়াফকারী, ইতেকাফকারী ও রুকু সিজদাকারীদের জন্য পবিত্র রাখো। আর যতক্ষণ তোমরা ইতেকাফ অবস্থায় মসজিদে অবস্থান করো, ততক্ষণ পর্যন্ত স্ত্রীদের সঙ্গে মিশো না। এই হলো আল্লাহ কর্তৃক বেঁধে দেওয়া সীমানা। অতএব, এর কাছেও যেয়ো না। এমনিভাবে বর্ণনা করেন আল্লাহ তাঁর আয়াতগুলো মানুষের জন্য, যাতে তারা তাকওয়া লাভ করতে পারে। (সুরা-২ [৮৭] আল বাকারা (মাদানি), রুকু: ১৫/১৫, আয়াত: ১২৫, মঞ্জিল: ১, পারা: ১ আলিফ লাম মিম, পৃষ্ঠা: ২০/১৮)। হজরত আয়িশা (রা.) বর্ণনা করেন, নবী করিম (সা.) আজীবন রমজানের শেষ দশকগুলো ইতিকাফ করেছেন। তাঁর ওফাতের পরও তাঁর বিবিগণ ইতেকাফ করতেন। (বুখারি ও মুসলিম; আলফিয়্যাতুল হাদিস: ৫৪৬, পৃষ্ঠা: ১২৯)।

ইতেকাফ একটি বিশেষ  ইবাদাত। ইতেকাফের মাধ্যমে মানুষ দুনিয়ার সবকিছু ছেড়ে আক্ষরিক অর্থেই বাহ্যত আল্লাহর সান্নিধ্যে চলে যায়। রমজানের শেষ দশক তথা ২০ রমজান সূর্যাস্তের পূর্ব থেকে ঈদের চাঁদ তথা শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা যাওয়া বা ৩০ রমজান পূর্ণ হয়ে ওই দিন সূর্যাস্ত পর্যন্ত (৯ দিন বা ১০ দিন) ইতেকাফ করা সুন্নাতে মুআক্কাদাহ কিফায়াহ। কোনো মসজিদে মহল্লার কয়েকজন বা কোনো একজন আদায় করলে সবাই দায়মুক্ত হবে। আর কেউই আদায় না করলে সবাই দায়ী থাকবে। তবে আদায়ের ক্ষেত্রে যিনি বা যাঁরা আদায় করবেন, শুধু তিনি বা তাঁরাই সওয়াবের অধিকারী হবেন।

১০ দিনের কম যেকোনো পরিমাণ সময় ইতেকাফ করলে তা নফল ইতেকাফ হিসেবে গণ্য হবে। নফল ইতেকাফও অত্যন্ত ফজিলতপূর্ণ আমল; তাই সম্পূর্ণ সুন্নত ইতেকাফ পালন করতে না পারলে যত দূর সম্ভব নফল ইতেকাফ করাও গুরুত্বপূর্ণ। ইতিকাফের অন্যতম উদ্দেশ্য হলো শবে কদরপ্রাপ্তি; রমজানের শেষ দশক ইতেকাফ করলে শবে কদরপ্রাপ্তি নিশ্চিত হয়। পুরুষদের মসজিদে ইতেকাফ করতে হয়; নারীরা নির্দিষ্ট ঘরে বা নির্ধারিত কক্ষে ইতেকাফ করবেন। নফল ইতেকাফও অত্যন্ত ফজিলতপূর্ণ আমল; তাই সম্পূর্ণ সুন্নত ইতেকাফ পালন করতে না পারলে যত দূর সম্ভব নফল ইতেকাফ করাও গুরুত্বপূর্ণ। নফল ইতেকাফ বছরের যেকোনো সময়ই করা যায়। ইতেকাফের জন্য রোজা শর্ত; কিন্তু স্বল্প সময় (এক দিনের কম সময়) ইতিকাফ করলে তার জন্য রোজা রাখা শর্ত নয়। নফল ইতিকাফ মান্নত করলে বা আরম্ভ করে ছেড়ে দিলে, তা পূর্ণ করা ওয়াজিব। এর জন্য রোজা শর্ত এবং এটি এক দিনের (২৪ ঘণ্টা) কমে হবে না।

ইতেকাফ অবস্থায় ইতিকাফকারী ফরজ ইবাদতের বাইরে কোনো নফল ইবাদত না করলেও ইতেকাফের সওয়াব পাবেন। তবে অতিরিক্ত নফল ইবাদত করলে আরও বেশি ফজিলতের অধিকারী হবেন। যেমন: কোরআন শরিফ তিলাওয়াত করা, নফল নামাজ পড়া, কাজা নামাজ আদায় করা, দোয়া–দরুদ পাঠ করা, জিকির আসকার করা, তাসবিহ তাহলিল পাঠ করা।

এ ছাড়া দিনি কথাবার্তা ও ধর্মীয় জ্ঞানচর্চা করাও সওয়াবের কাজ। যেমন: কোরআন, হাদিস, তাফসির ইত্যাদি পাঠ করা ও তালিম করা। ইতেকাফ অবস্থায় এমন সব কথা বলা ও কাজ করা বৈধ, যাতে কোনো গুনাহ নেই। প্রয়োজনীয় সাংসারিক কথাবার্তা বলতেও নিষেধ নেই; তবে অহেতুক অযথা বেহুদা কথাবার্তা দ্বারা ইবাদতের পরিবেশ নষ্ট করা যাবে না। ইতেকাফকারী মসজিদের মধ্যে ইতেকাফরত অবস্থায় সুগন্ধি ব্যবহার করতে পারবেন এবং মাথায়, দাঁড়িতে ও চুলে তেল লাগাতে পারবেন। মাথার চুলে ও দাড়িতে চিরুনি করতে পারবেন। (আল বাদায়ে ওয়াস সানায়ে)। যাঁরা শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত, তাঁরা ইতেকাফ অবস্থায় মসজিদের ভেতরে তালিম দিতে পারবেন। (খোলাসা)।

5 responses to “পবিত্র মাহে রমজানে ইতেকাফ এর ফজিলত”

  1. … [Trackback]

    […] There you can find 70713 additional Information on that Topic: doinikdak.com/news/11687 […]

  2. Ecstasy says:

    … [Trackback]

    […] Information to that Topic: doinikdak.com/news/11687 […]

  3. … [Trackback]

    […] Find More on on that Topic: doinikdak.com/news/11687 […]

  4. … [Trackback]

    […] Here you can find 80697 additional Information to that Topic: doinikdak.com/news/11687 […]

  5. … [Trackback]

    […] Find More on that Topic: doinikdak.com/news/11687 […]

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x