ঢাকা, সোমবার ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:৫৩ পূর্বাহ্ন
নানা ও মামা শশুর কে নির্যাতন ও ভিডিও করে ফেসবুকে প্রচার
 মোহাম্মদ ইয়াসিন,সাভার:

ঢাকার সাভারে নাতনিকে দেখতে আসায় মেয়ের নানা ও মামাকে চুরির অপবাদ দিয়ে পানি ট্যাংকির পাইপের সঙ্গে রশি দিয়ে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার(১১আগস্ট) রাতে নির্যাতনের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে আলোরন সৃষ্টি হয়।

ঘটনাটি ঘটে সাভারের বনগাঁও ইউনিয়নের সাধাপুর কাজীপাড়া গ্রামের বসির মহাজনের বাড়ীতে।

এলাকাবাসী জানায়, প্রায় ১৩ মাস আগে সিংগাইর উপজেলার খাসেরচর গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের কন্যা সোনিয়া আক্তারের সাথে সাভারের বনগাঁও ইউনিয়নের সাধাপুর কাজীপাড়া গ্রামের বসির মহাজনের বখাটে ছেলে আবুল কালামের সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়।

বিয়ের পর থেকে সোনিয়ার সাথে যৌতুক নিয়ে তার স্বামী ও শশুরবাড়ীর লোকজন মানুষিক ও শারীরিক নির্যাতন করে আসছিলো।নাতনীর নির্যাতনের কথা শুনে গত ১০ আগস্ট নানা ও মামা সোনিয়া আক্তারকে দেখতে তার শশুর বাড়িতে যায়।

শশুর বাড়ীর লোকজন তাদের দেখে ক্ষিপ্ত হয় এবং সোনিয়ার স্বামী আবুল কালাম নানা শ্বশুর ও মামা শ্বশুরের ওপর বর্বর নির্যাতন চালায়।  এ সময় আবুল কালামের সহযোগীরা নির্যাতনের ভিডিও ধারনকরে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করে এবং মুহুর্তে তা ভাইরাল হয়ে যায়।

ভিডিওতে দেখা যায়, মামা ও নানাকে রশি দিয়ে বেঁধে মারধর করা হচ্ছে। নির্যাতন করতে করতে এক পর্যায়ে মাটিতে পড়ে গেলে আরেক মামা আরশেদ আলী ঘটনাস্থলে পৌঁছে। নির্যাতিদের নিকট থেকে অভিযোগ না করার মর্মে স্ট্যাম্পে সইও নেওয়া হয়। অভিযোগ করলে বসতভিটা থেকে উচ্ছেদের হুমকি দেয়া হয়। ভুক্তভোগীদের দুটি মোবাইল ফোন ও নগদ সাড়ে চার হাজার টাকা কেড়ে নেওয়ার ও অভিযোগ পাওয়া যায়।পরে বাড়ির ছাদে নিয়ে আবারও মারধর করে হত্যার চেষ্টা করে বলেও অভিযোগ আছে।এলাকাবাসী ৯৯৯ নাইনে ফোন দিলে পুলিশ এসে তাদের উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তি দাবি করেছেন ভুক্তভোগী ও এলাকাবাসী।

এলাকাবাসীর আরও অভিযোগ, বসির মহাজন ও তার ছেলে আবুল কালাম নানা অপরাধমূলক কাজ করলেও তাদের বিরুদ্ধে কেউ কথা বলতে সাহস পান না। কারণ তারা প্রভাবশালী।

এদিকে ঘটনার সত্যতা জানতে গতকাল বুধবার রাতে বসির মহাজনের বাড়িতে গেলে সাংবাদিকদের দেখেই বাবা ও ছেলে ক্ষিপ্ত হয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করেন।

এ বিষয়ে সাভার মডেল থানার ভবানীপুর পুলিশ ক্যাম্পের এস আই (উপ-পরিদর্শক) নাজিউর রহমান বলেন, অভিযুক্তদের আজ ক্যাম্পে ঢাকা হয়েছে। তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সাভার মডেল থানার (ওসি) কাজী মাইনুল ইসলাম জানান, আইন আইনের গতিতেই চলবে। কোনো অপরাধী পার পাবে না। তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ভুক্তভোগী পরিবার নির্যাতনকারীদের দ্রুত গ্রেফতারপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়ে প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন সবাই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যাবহারকারী সহ এলাকাবাসী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x