ঢাকা, রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১১:০৯ পূর্বাহ্ন
‘যুক্তরাষ্ট্র কেবল আফগান ঝামেলা মেটাতেই পাকিস্তানকে দরকারি ভাবে’- ইমরান খান
দৈনিক ডাক অনলাইন ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তানে পাকানো তালগোল মেটাতেই শুধু পাকিস্তানকে দরকারি মনে করে বলে দাবি করেছেন পাকিস্তানি প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। গত বুধবার ইসলামাবাদে নিজ বাড়িতে একদল বিদেশি সাংবাদিকের সামনে এই অভিযোগ করেন তিনি। খবর রয়টার্সের।

ইমরান খান বলেন, পাকিস্তানকে কেবল দরকারি মনে করা হয় যেকোনোভাবে এই জগাখিচুড়ি অবস্থা নিষ্পত্তির প্রেক্ষাপটে, যা ২০ বছর ধরে একটি সামরিক সমাধান খোঁজার চেষ্টায় তৈরি হয়েছে। আফগান সংকটের সামরিক সমাধান কখনো ছিল না বলেও এসময় মন্তব্য করেন পাকিস্তানি প্রধানমন্ত্রী।

আগামী ৩১ আগস্টের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে সকল মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের কথা যুক্তরাষ্ট্রের। ২০০১ সালে তালেবান সরকারকে উৎখাতের প্রায় দুই দশক পর নিজেদের ইতিহাসের দীর্ঘতম যুদ্ধের সমাপ্তি টানার ঘোষণা দিয়েছে ওয়াশিংটন। তবে মার্কিনসহ সকল পশ্চিমা সেনা প্রত্যাহার প্রক্রিয়া যত এগোচ্ছে, তত বেশি আফগানিস্তানের বিভিন্ন এলাকার দখল নিচ্ছে তালেবান।

কাবুলসহ পশ্চিমা সরকারগুলোর অভিযোগ, পাকিস্তানের প্রত্যক্ষ মদদেই তালেবান বিদ্রোহীরা এত শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। মার্কিনিদের মিত্র হওয়া সত্ত্বেও তালেবানকে সমর্থনের অভিযোগ ইমরান সরকারের জন্য গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে। যদিও এসব অভিযোগ বরাবরই অস্বীকার করে এসেছে পাকিস্তান।

ইমরান খান দাবি করেছেন, আফগানিস্তান ইস্যুতে পাকিস্তান কারও পক্ষ নিচ্ছে না। উল্টো যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে তিনি বলেছেন, আমার মনে হয়, মার্কিনিরা এখন ভারতকে কৌশলগত অংশীদার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আর সেজন্যই পাকিস্তানের সঙ্গে অন্য ধরনের আচরণ করা হচ্ছে।

পাকিস্তানি প্রধানমন্ত্রীর মতে, বর্তমান পরিস্থিতিতে আফগানিস্তানের জন্য রাজনৈতিক সমাধান পাওয়া দুরূহ। তালেবান নেতারা পাকিস্তান সফরের সময় তিনি একটি সমঝোতায় পৌঁছানোর চেষ্টা করেছিলেন বলেও দাবি করেন ইমরান খান। তিনি জানান, তালেবান নেতারা তাকে বলেছেন, যতক্ষণ আশরাফ ঘানি রয়েছেন, ততক্ষণ আমরা আফগান সরকারের সঙ্গে কোনো কথা বলব না।

আফগানিস্তানের বর্তমান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি ও তার সরকারকে মার্কিনিদের পুতুল মনে করে তালেবান। তাদের সঙ্গে শান্তিআলোচনাও অনেকটা স্থবির হয়ে পড়েছে। গত সেপ্টেম্বরে আফগান সরকার ও তালেবান প্রতিনিধিদের মধ্যে আলোচনা শুরু হলেও তাতে এখন পর্যন্ত উল্লেখযোগ্য কোনো অগ্রগতি দেখা যায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রসহ বেশ কয়েকটি দেশের প্রতিনিধিরা আফগান-তালেবানের মধ্য সমঝোতায় মধ্যস্থতার জন্য বর্তমানে কাতারের রাজধানী দোহায় অবস্থান করছেন। একইসঙ্গে আফগান সরকারের সমর্থনে তালেবানের বিরুদ্ধে বিমান হামলাও অব্যাহত রেখেছে ওয়াশিংটন। তবে আগামী ৩১ আগস্টের পর এই সহযোগিতা থাকবে কি না তা পরিষ্কার নয়।

ইমরান খান পরিষ্কার বলে দিয়েছেন, আফগানিস্তান ছাড়ার পর পাকিস্তানে মার্কিনিদের কোনো ঘাঁটি দেখতে চায় না তার দেশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x