ঢাকা, মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪, ০২:০২ পূর্বাহ্ন
বিরামপুর সীমান্তে বেপরোয়া চলাফেরায় ৩২ জনের জরিমানাঃ ৪ জুয়াড়ীর কারাদণ্ড
মিজানুর রহমান মিজান, বিরামপুর(দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ

দিনাজপুর জেলার বিরামপুরে সীমান্তে মাদক সেবন করতে আসায় ও আইন অমান্য করে বেপরোয়া মোটর সাইকেল চালানোর অপরাধে ৩২ জনের ১৯ হাজার ৮’শত টাকা জরিমানা করেছেন  এবং ৪ জুয়াড়ীকে ১৫ দিনের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমান আদালত।

বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) বিকেল ৩টা থেকে রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত বিরামপুর পৌরশহরের ঢাকামোড় ও কাটলা বাজারের ধানহাটি মোড়ে এ ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পরিমল কুমার সরকার। এসময় বিরামপুরে সীমান্তে মাদক সেবন করতে আসা ও আইন অমান্য করে বেপরোয়া মোটর সাইকেল চালানোর অপরাধে ৩২ জনের ১৯ হাজার ৮’শত টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমান আদালতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পরিমল কুমার সরকার।

আটককৃত অধিকাংশেরই বাড়ি রংপুরের পীরগঞ্জ, খালাসপীর, গাইবান্ধার পলাশবাড়ি, গোবিন্দগঞ্জ, বগুড়ার মোকামতলা ও দিনাজপুরের বিরামপুর ও পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন উপজেলায়। আটককৃতরা মোটর সাইকেল যোগে বিরামপুর সীমান্ত এলাকায় মাদক সেবন করতে এসেছিল এবং তাঁদের অনেকেরই গাড়ির কোনো বৈধ কাগজপত্র ছিল না।

অপরদিকে, বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই)বিকেলে বিরামপুর  পৌরশহরের ইসলামপাড়া বিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) সুমন কুমার মহন্ত জানান, ‘পৌর শহরের ইসলামপাড়ায় একটি বাড়িতে জুয়া খেলা চলছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানা পুলিশের একটি টিম সেখানে অভিযান চালায়। এসময় আইন অমান্য করে জুয়া খেলার অপরাধে ৪ জন জুয়াড়িকে আটক করা হয়।  পরে আটককৃতদেরকে ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করা হলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পরিমল কুমার সরকার আটক ৪ জনকে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেন।’

কারাদন্ড প্রাপ্তরা হলেন, বিরামপুর পৌরশহরের  ইসলামপাড়া মহল্লার ওসমান আলীর ছেলে সাইদুল ইসলাম (৪২),
কৃষ্টচাঁদপুর মহল্লার অফির উদ্দিনের ছেলে নজরুল ইসলাম (৫৫), একই মহল্লার আব্দুল মজিদের ছেলে মাইদুল ইসলাম (৩৬), আব্দুল গণির ছেলে কনক আলী (৪০)।

ওসি সুমন কুমার মহন্ত জানান,কারাদন্ডপ্রাপ্ত ৪ জুয়াড়ীকে ২৩/০৭/২০২১ইং তারিখ সকালে দিনাজপুর জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পরিমল কুমার সরকার বলেন, ‘ঈদের ২য় দিনে বিরামপুর শহরে যানজট কমানো, অনাকাঙ্খিত দুর্ঘটনা হ্রাস এবং সীমান্ত এলাকায় মাদকসেবীদের  বেপরোয়া আনাগোনা নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যেই এ ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়। এ অভিযানে বিরামপুর থানার ইনচার্জ (ওসি) সুমন কুমার মহন্তের নেতৃত্বে থানা পুলিশের একটি দল সার্বিক সহযোগিতা করেছেন।’

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আরও বলেন, কঠোর লকডাউন বাস্তবায়ন ও  সীমান্ত এলাকায় মাদক সেবীদের আনাগোনা নিয়ন্ত্রণে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে এ অভিযান অব্যাহত থাকব।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x