ঢাকা, শুক্রবার ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০২:৫৫ অপরাহ্ন
পরশুরামে করোনায় ৫ দিনের ব্যবধানে বাবা ও ছেলের মৃত্যু
পেয়ার আহাম্মদ চৌধুরী

ফেনীর পরশুরামে বাবার মৃত্যুর ৫ দিন পরই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মঙ্গলবার রাতে মারা যান ছেলে গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী। পরশুরাম পৌর এলাকার ৬নং ওয়ার্ড কোলাপাড়া এমন হৃদয়বিদারক ঘটনায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে পুরো এলাকা জুড়ে এলাকাবাসী ও স্বজনরা জানান, বেশ কিছুদিন ধরে আশিউর্ধ্ব বয়সী বেলায়েত হোসেন বলেন নানা উপসর্গে ভুগছিলেন। গত ১ জুলাই বৃহস্পতিবার নিজ বাড়ীতেই মারা যান তিনি। তার মৃত্যুর পর ছেলে গিয়াস উদ্দিনও অসুস্থ হয়ে পড়েন। করোনা পরীক্ষার জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রবিবার নমুনা দেন। মঙ্গলবার নোয়াখালীর আবদুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাব থেকে প্রেরিত প্রতিবেদনে তার শরীরে করোনা সংক্রমণ নিশ্চিত হয়।

পরিবার সূত্র জানায়, মঙ্গলবার রাতে শ্বাসকষ্ট অনুভব হলে অক্সিজেনের জন্য হ্যালো অক্সিজেন সেবায় খবর দেয়া হয়। উপজেলা যুবলীগ সভাপতি ইয়াছিন শরীফ মজুমদার ও তার সহযোগি সিলিন্ডার নিয়ে রাত ১০টার দিকে যখন বাড়িতে পৌঁছেন ততক্ষনে মরদেহের পাশে পরিবারের সদস্যদের কান্নার রোল পড়ে যায়। ইয়াছিন শরীফ মজুমদার জানান, আরো কয়েক মিনিট আগে যদি পৌঁছাতে পারতাম হয়তো আজকে এমন দৃশ্যের মুখোমুখি হতে হতো না।

করোনায় মারা যাওয়া গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী’কে আজ বুধবার(৭জুলাই)সকাল ৯টায় তার স্বেচ্ছাসেবক টিমের মাওলানা মুহাম্মদ আলা উদ্দিন, মনচুর আহমেদ, এনামুল করিম আজাদ, আবুল কালাম, জহিরুল ইসলাম হৃদয়, আমিনুল ইসলাম রানা, সাইফুল ইসলাম, আবদুর রহিম হৃদয়, নুরুল ইসলাম সিজান এন দায়িত্বে দাফন করা হয়েছে।

পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড(উত্তর কোলাপাড়া) কাউন্সিলর কামাল উদ্দিন জানান, করোনায় আক্রান্ত হয়ে গিয়াস উদ্দিন মৃত্যুর খবর তিনি শুনেছেন। সে বাকপ্রতিবন্ধী।

তার এক ছেলে রয়েছে। গত বৃহস্পতিবার তার বাবা মারা গেছে। বাবা ছেলের মৃত্যুতে শোকাভিভূত এলাকাবাসী।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত চিকিৎসক আফতাবুল আলম তার মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মঙ্গলবার গিয়াস উদ্দিনের করোনা পজেটিভ রিপোর্ট পাওয়া গেছে। হঠাৎ করে রাতেই তিনি মারা যান। ফলে চিকিৎসা দেয়ার আর সুযোগ পাওয়া যায়নি।

 

 

মরহুম গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী পরশুরাম পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের জনপ্রিয় সাবেক শিক্ষক মরহুম হেদায়েত উল্লাহ্ মাস্টারের মেঝ ভাইের ছেলে ও সাংবাদিক পেয়ার আহাম্মদ চৌধুরী’র জেঠাত ভাইের ছেলে এবং মির্জানগর ইউনিয়ন পরিষদ এর সদস্য বক্কর মেম্বারের বড় বোনের ছেলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x