ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৩ মে ২০২৪, ০৮:৪৭ অপরাহ্ন
কালিহাতী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তার হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ে বন্ধ
মোঃ শরিফুল ইসলাম, টাঙ্গাইল

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার ৭নং সহদেবপুর ইউনিয়নের চক বানিয়াফৈর গ্রামের ছামাদ মন্ডলের বাড়িতে গিয়ে বাল্যবিবাহ বন্ধ করেন, সোমবার (২১ জুন) সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহ কর্মকর্তা  রুমানা তানজিন অন্তরা। বিয়ের খানাদানা  প্রায় শেষ, সম্পন্ন হয়েছিল বিয়ের সব আয়োজন, হটাৎ এমন সময় বিয়ে বাড়ীতে হাজির উপজেলা প্রশাসন বন্ধ করলেন দশম শ্রেণীর ছাত্রীর বাল্যবিয়ে।

এলাকাবাসীর গোপন সংবাদে সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার সহদেবপুর ইউনিয়নের চক বানিয়াফৈর গ্রামের ছামাদের মেয়ে দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী সামিয়া আক্তার (১৫) সাথে বাসাইল উপজেলার কাঞ্চনপুর ইউনিয়নের শৈদানপুর গ্রামের সুরুজ মিয়ার ছেলে আবু আহসানের বিয়ে ঠিক হয়। সে অনুয়ায়ী সোমবার বিকেলে তাদের বিয়ের আয়োজন চলছিলো। পরে খবর পেয়ে সাথে সাথেই ওই শিক্ষার্থীর বাড়িতে গিয়ে হাজির হন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুমানা তানজিন অন্তরা এবং বন্ধ করে দেন বাল্য বিয়ে। এসময়  স্থানীয় সহদেবপুর ইউনিয়ন পরিষদের  চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে ১৮ বছরের আগে মেয়ের বিয়ে নয়, মেয়েকে ২ বছর এক মাস সময় বেধে দিয়ে  এই শর্তে ওই শিক্ষার্থীর মা-বাবার মুচলেকা নেন। একই সঙ্গে তিনি করোনা কালীন সময়ে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতার মাধ্যমে জনসমাগম সৃষ্টি করায় কনে পক্ষকে ৫ হাজার ও বর পক্ষ কেও ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা  রুমানা তানজিন অন্তরা বলেন বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে কালিহাতী উপজেলা প্রশাসনের এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x