ঢাকা, রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১১:০৮ পূর্বাহ্ন
আবারো করোনায় এক দিনে ৪ হাজারের ওপর মৃত্যু ভারতে
Reporter Name

বিশ্বে করোনায় মৃত্যুর দিক দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলের পরেই তৃতীয় স্থানে রয়েছে ভারত। ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় সংক্রমিত রোগী শনাক্ত কমেছে  কিন্তু বেড়েছে মৃত্যু। দেশটিতে এক দিনে মৃত্যু আবারো চার হাজারের ওপরে উঠেছে। আজ সোমবার এনডিটিভি অনলাইনের প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।

ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় ২ লাখ ২২ হাজার ৩১৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। একই সময়ে দেশটিতে করোনায় ৪ হাজার ৪৫৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

সবশেষ এই তথ্য নিয়ে ভারতে করোনায় মারা যাওয়া ব্যক্তির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৩ হাজার ৭২০ জন। ভারতে করোনায় সংক্রমিত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ২ কোটি ৬৭ লাখ ৫২ হাজার ৪৪৭।

ভারতে শনিবার ২ লাখ ৪০ হাজার ৮৪২ জনের করোনা শনাক্ত হয়। মারা যান ৩ হাজার ৭৪১ জন। শুক্রবার প্রায় ২ লাখ ৫৭ হাজার মানুষের করোনা শনাক্ত হয়। মারা যান ৪ হাজার ১৯৪ জন। বৃহস্পতিবার প্রায় ২ লাখ ৫৯ হাজার মানুষের করোনা শনাক্ত হয়। মারা যান ৪ হাজার ২০৯ জন। বুধবার প্রায় ২ লাখ ৭৬ হাজার মানুষের করোনা শনাক্ত হয়। মারা যান ৩ হাজার ৮৭৪ জন। মঙ্গলবার প্রায় ২ লাখ ৬৭ হাজার মানুষের করোনা শনাক্ত হয়। মারা যান ৪ হাজার ৫২৯ জন। ভারতে আগে কখনো এক দিন এত মানুষ করোনায় মারা যাননি। সোমবার ভারতে ৪ হাজার ৩২৯ জন মারা যান। এদিন প্রায় ২ লাখ ৬৩ হাজার মানুষের করোনা শনাক্ত হয়। ১৬ মে (রোববার) প্রায় ২ লাখ ৮১ হাজার মানুষের করোনা শনাক্ত হয়। গত ২১ এপ্রিলের পর দেশটিতে এদিনই প্রথম ২৪ ঘণ্টায় ৩ লাখের নিচে করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এদিন দেশটিতে করোনায় মারা যান ৪ হাজার ১০৬ জন।

গত মার্চের মাঝামাঝিতে ভারতে এক দিনে শনাক্ত করোনা রোগীর সংখ্যা ছিল ২০ হাজারের কাছাকাছি। তারপর দেশটিতে লাফিয়ে বাড়তে থাকে সংক্রমণ। গত ৩ এপ্রিল ভারতে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দুই কোটির মাইলফলক ছাড়ায়। আর ২৩ মে করোনায় মৃত্যু তিন লাখের মাইলফলক ছাড়ায়।

গত ৩০ এপ্রিল ভারতে প্রথম এক দিনে চার লাখের বেশি মানুষের করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে। তারপর একাধিক দিন দেশটিতে চার লাখের বেশি রোগী শনাক্ত হয়। গত সাত দিন ধরে ভারতে তিন লাখের নিচে করোনা শনাক্ত হচ্ছে।

৭ মে ভারতে প্রথম এক দিনে করোনায় চার হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। তারপর একাধিক দিন দেশটিতে চার হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়। সবশেষ গতকাল দেশটিতে মৃত্যু চার হাজারের ওপরে উঠল।

ভারতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের মধ্যে নতুন চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখা দিয়েছে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস। দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের সংক্রমণ বাড়ছে। এ সংক্রমণের জেরে বাড়ছে মৃত্যুও।

বিশ্বের কোনো দেশে এক দিনে সর্বোচ্চসংখ্যক করোনা রোগী শনাক্তের রেকর্ড এখন ভারতের দখলে। গত ২২ এপ্রিলের আগপর্যন্ত এ রেকর্ড যুক্তরাষ্ট্রের দখলে ছিল। যুক্তরাষ্ট্রে গত জানুয়ারিতে এক দিনে সর্বোচ্চ ২ লাখ ৯৭ হাজার ৪৩০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল।

ওয়ার্ল্ডোমিটারস শুরু থেকেই বিশ্বের বিভিন্ন দেশের করোনাবিষয়ক হালনাগাদ তথ্য দিয়ে আসছে। ওয়ার্ল্ডোমিটারসের সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্রের পরেই রয়েছে ভারত। ভারতের পর রয়েছে ব্রাজিল। সম্প্রতি সংক্রমণের দিক দিয়ে ব্রাজিলকে টপকে দ্বিতীয় অবস্থানে উঠে আসে ভারত। আর মৃত্যুর দিক দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলের পরেই রয়েছে ভারত।

বিশ্বে বর্তমানে করোনার সংক্রমণের কেন্দ্র ভারত। ভারতে সংক্রমণের ‘বিস্ফোরণের’ জন্য করোনার ভারতীয় ধরনকে অনেকাংশে দায়ী করা হচ্ছে। করোনার ভারতীয় ধরনকে ‘উদ্বেগজনক’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। এ ছাড়া ভারতে সংক্রমণ বৃদ্ধির জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠান, ধর্মীয় উৎসব ও খেলাধুলার আয়োজনকে দায়ী করা হচ্ছে।

ভারতে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যুর যে হিসাব দেশটির সরকার দিচ্ছে, তার চেয়ে প্রকৃত সংখ্যা বেশি হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে, এমন আশঙ্কার কথা বিজ্ঞানীরা আগে জানালেও তাতে গুরুত্ব না দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে। ভারতের করোনা সংকটের জন্য দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে কাঠগড়ায় তুলেছে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন মেডিকেল জার্নাল দ্য ল্যানসেট।

এনডিটিভির তালিকা অনুসারে, ভারতে করোনার সংক্রমণ সবচেয়ে বেশি মহারাষ্ট্রে। তারপর রয়েছে কর্ণাটক, কেরালা, তামিলনাড়ু, উত্তর প্রদেশ, অন্ধ্র প্রদেশ, দিল্লি, পশ্চিমবঙ্গ, ছত্তিশগড়, রাজস্থান, গুজরাট, মধ্যপ্রদেশ ও হরিয়ানা।

করোনা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতির মুখে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। পাশাপাশি টিকাদান কার্যক্রম জোরদার করা হয়। ১ মে থেকে সব প্রাপ্তবয়স্ক নাগরিককে (১৮ বছরের ঊর্ধ্বে) টিকাদানের কর্মসূচি হাতে নিয়েছে ভারত। তবে বিভিন্ন রাজ্যের কর্তৃপক্ষ টিকার সংকটের কথা জানাচ্ছে। তা ছাড়া টিকা গ্রহণের হারও কম। এমন পরিস্থিতিতে ভারতে করোনার তৃতীয় ঢেউ আঘাত হানতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

7 responses to “আবারো করোনায় এক দিনে ৪ হাজারের ওপর মৃত্যু ভারতে”

  1. click says:

    … [Trackback]

    […] There you will find 32674 additional Info on that Topic: doinikdak.com/news/18069 […]

  2. maxbet says:

    … [Trackback]

    […] Find More on to that Topic: doinikdak.com/news/18069 […]

  3. … [Trackback]

    […] There you will find 89710 more Info on that Topic: doinikdak.com/news/18069 […]

  4. … [Trackback]

    […] Find More on to that Topic: doinikdak.com/news/18069 […]

  5. … [Trackback]

    […] Read More Information here on that Topic: doinikdak.com/news/18069 […]

  6. … [Trackback]

    […] Read More here on that Topic: doinikdak.com/news/18069 […]

  7. Porn says:

    … [Trackback]

    […] Info to that Topic: doinikdak.com/news/18069 […]

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x