ঢাকা, সোমবার ১৭ জুন ২০২৪, ০৭:০১ অপরাহ্ন
বোরো ধানে বাম্পার ফলনের আশা কৃষকের
Reporter Name

গোলাম রাব্বানী, মান্দা, নওগাঁ: কার্তিক মাস থেকে বীজ তলায় বীজ রোপন শুরু করে ধান হয়। ধান কাটা চলে বৈশাখ-জৈষ্ঠ্য পর্যন্ত। এ সময় সবুজ মাঠে দেকা দিয়েছে ধানের শীষ। ধানের সবুজ আভা কেটে হলুদ রং আসতে শুরু করেছে ধানের গাছগুলোতে। ধানে শীষ কৃষকের চোখে উচ্চ ফলনের স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে। এবছর ধান বপন থেকে শুরু করে এ সময় পর্যন্ত আবহাওয়া অনুকূলে রয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ধানগাছে রোগ বালাই হচ্ছে কম। ধান কেটে ঘরে তোলা পর্যন্ত এমন আবহাওয়া থাকলে বাম্পার ফলনের আশা করছে সকল কৃষকগণ।

উপজেলা কৃষি অফিস থেকে জানা যায় চলতি মেীসুমে নওগাঁর মান্দা উপজেলার ১৪ ইউনিয়নে ১৯ হাজার ৯৩০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ করা হয়েছে। যা তাদের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২৪০ হেক্টর বেশি। এর মধ্যে উচ্চ ফলনশীল হীরা, তেজ, গোল্ড জাতের চাষ হয়েছে ২ হাজার ১১৫ হেক্টর জমিতে।

সরকার হাইব্রীড জাতের ওপর প্রণোদনা দেওয়ায় গতবছরের তুলনায় ৮২৫ হেক্টর বেশি জমিতে এ ধানের আবাদ করেছেন কৃষকরা। সূত্রটি আরও জানায়, উপজেলার বিভিন্ন মাঠে এবছর ব্রি ধান-২৮, ২৯, ৮১, ৮৯ ও জিরাশাইল ধানের চাষ হয়েছে। এর মধ্যে বেশি চাষ হয়েছে ব্রি ধান-২৮ ও জিরাশাইল ধানের। কিছুকিছু মাঠে এবছর ব্রি ধান-৮১ জাত চাষ করেছেন কৃষক।

মান্দা উপজেলার ভারশোঁ ইউনিয়নের ভারশোঁ গ্রামের কৃষক জব্দুল সরকার সহ আরও অনেকে বলে, ধানের চারা রোপণের পর থেকে এখন পর্যন্ত আবহাওয়া অনুকূল রয়েছে। সেচকাজে কোনো রকম বিঘ্ন ঘটেনি। মেঘলা আবহাওয়া বিরাজ না করায় খেতে মাজরা পোকাসহ অন্যান্য রোগের প্রকোপ ছিল কম।

পচন ও নেকব্লাস্ট রোগের আক্রমণ নেই বললেই চলে। এজন্য জমিতে দফায় দফায় কীটনাশক প্রয়োগ করতে হয়নি। উপজেলার বিভিন্ন মাঠে আগাম রোপণকৃত ধান ৮-১০ দিনের মধ্যে কাটামাড়াই শুরু হবে। কাটামাড়াই পুরোদমে শুরু হতে আরও এক সপ্তাহ লাগতে পারে।

এ সময় অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ দাবি করে তারা বলেন, ঝড়ো আবহাওয়া ও শিলাবৃষ্টির শঙ্কা মাথায় নিয়ে কৃষকরা মাঠে রয়েছেন। স্বপ্নের ধান কেটে ঘরে তুলতে পারলে এ ফসলে বাম্পার ফলনের আশা করছেন তারা। কৃষি অফিস থেকে বলা হচ্ছে, এ সময় রাত ও দিনের তাপমাত্রা উঠানামা করছে। এটি অত্যন্ত ক্রিটিক্যাল। কোনো কোনো সময় দিনের তাপমাত্রা ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস অতিক্রম করছে।

এটি অব্যাহত থাকলে ধানের শীষ হিটশকে আক্রান্ত হতে পারে। এজন্য কৃষকদের সবরকম পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। কৃষি কর্মকর্তা বলেন, আগামী ১-২ সপ্তাহের মধ্যে কাটা-মাড়াই শুরু হবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এ আবাদ থেকে ১ লাখ ১০ হাজার মেট্রিক টন ধান উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x