ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৩৮ পূর্বাহ্ন
তালেবানকে ‘ক্ষমতা ভাগাভাগির প্রস্তাব’
দৈনিকডাক অনলাইন ডেস্ক

আফগানিস্তানে অপ্রতিরোধ্য সশস্ত্র গোষ্ঠী তালেবান বৃহস্পতিবার (১২ আগস্ট) দেশটির আরেকটি প্রাদেশিক রাজধানী গজনী দখল করে নিয়েছে। এ নিয়ে দেশটির ৩৪টি প্রদেশের মধ্যে ১০ টি দখল করে নিয়েছে তালেবান। এদিকে তালেবানের এমন অগ্রযাত্রার মধ্যেই অবশেষে আফগানিস্তানের বর্তমান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানির সরকার ওই সশস্ত্র গোষ্ঠীকে নতুন প্রস্তাব দিয়েছে। সরকারি সূত্রের বরাতে বৃহস্পতিবার (১২ আগস্ট) আল জাজিরা জানায়, কাবুল সরকার তালেবানের সঙ্গে ক্ষমতা ভাগাভাগির প্রস্তাব দিয়েছে।

বৃহস্পতিবার সরকারি সূত্রের বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা তালেবানের সঙ্গে ক্ষমতা ভাগাভাগি করতে কাবুল সরকারের এমন প্রস্তাবের খবর জানিয়েছে। আল-জাজিরা জানায়, মধ্যস্থতাকারী হিসেবে কাতারের কাছে একটি প্রস্তাব জমা দিয়েছে আফগান সরকার। আফগানিস্তানে সহিংসতা বন্ধের বিনিময়ে তালেবানকে ক্ষমতার ভাগ দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় দীর্ঘদিন ধরে সরকার ও তালেবানের মধ্যে কাতারে এই শান্তি আলোচনা চলছে।

গত এপ্রিলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ঘোষণা দেন, ৩১ আগস্টের মধ্যে মার্কিন সেনারা আফগানিস্তান ছাড়বে। বাইডেনের এ ঘোষণার পর থেকে তালেবান দেশটি নিজেদের দখলে নিতে সরকারি বাহিনীর সঙ্গে লড়াই শুরু করে।  বৃহস্পতিবার (১২ আগস্ট) গজনী, মঙ্গলবার (১০ আগস্ট) একদিনেই তিনটিসহ এ পর্যন্ত মোট ১০টি প্রাদেশিক রাজধানীতে তালেবান তাদের পতাকা উড়িয়েছে।

গজনীর আগে তালেবানের হাতে পতন হওয়া প্রাদেশিক রাজধানীগুলো হচ্ছে—কাবুল থেকে দেড়শ কিলোমিটার উত্তরের বাগলান প্রদেশের রাজধানী পুল-ই-খুমরি, পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশ ফারাহের একইনামের রাজধানী ও অসমতল বাদাখসানের রাজধানী ফাইজাবাদ।

এর আগে তালেবানের দখলে নেওয়া ছয় প্রাদেশিক রাজধানী হচ্ছে—নিমরোজ প্রদেশের জারানজ, জাওজানের শেবারগান, কুন্দুজ, সার-ই-পুল, তাখার প্রদেশের তালোকান এবং সামানগান প্রদেশের আইবাক।

এর আগে মঙ্গলবার (১০ আগস্ট) হোয়াইট হাউসে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেন, আফগানিস্তানে যেসব প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, যুক্তরাষ্ট্র তা রক্ষা করেছে। তাদেরকে বিমান হামলার মাধ্যমে সমর্থন দেওয়া হয়েছে। সামরিক বেতন দেওয়া হয়েছে। আফগান বাহিনীকে খাবার ও সরঞ্জামাদি সহায়তা দেওয়া হয়েছে। এরপর বাইডেন বলেন, দেশের জন্য আফগানদেরই লড়াই করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x