ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২১ অক্টোবর ২০২১, ০১:৫৪ অপরাহ্ন
পাইকগাছায় বাথরুমের ট্যাংকির ছাদ ভাড়া নিয়েই ওদের বসবাস
মোঃ মনিরুল ইসলাম, পাইকগাছা (খুলনা)

খুলনার পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনি ইউনিয়নের অসহায় ভূমি ও গৃহহীন মফিজুল মোড়ল দম্পত্তি মাথা গোঁজার ঠাঁই চায়। বাথরুমের ট্যাংকির ছাদ ভাড়া নিয়ে বসবাস করা এ পরিবারটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রাণের আকুতি জানিয়েছে।

সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, মফিজুল মোড়ল (২৪) পিতাঃ তুরফান মোড়ল, ভোটার আইডি নং- ১৫০৬২০৫২৭৫, গ্রামঃ নাছিরপুর, ডাকঘরঃ কপিলমুনি, থানা- পাইকগাছা, জেলা- খুলনা। নিজস্ব ভিটে মাটি না থাকায় সে প্রায় ৭ বছর ধরে একই গ্রামের মোঃ হাফিজুর রহমানের বিল্ডিং এর বাথরুমের ট্যাংকির ছাদ ৫০০টাকায় ভাড়া নিয়ে স্ত্রী পরিজন নিয়ে কোন রকম বসবাস করে আসছে। বর্তমান বর্ষা মৌসুমে প্রচন্ড দূর্গন্ধ বের হওয়ায় তাকে অস্থায়ী ঐ ঘর ছেড়ে রাস্তায় নামার উপক্রম হয়েছে।

মফিজুল জানায়, আমরা দু’ভাই বোন। আমার পিতার কোন জায়গা জমি, ঘর নাই। কর্মাক্ষম, দরিদ্র অসুস্থ্য পিতা কোন দিন ঘরের চালের নীচে মাথা দেয়নি। অর্ধাহারে, অনাহারে আমার মা হাচিনা বেগম এ বাড়ী সে বাড়ীর বারান্দায় আত্মীয় পরিজন ও প্রতিবেশীদের লাঞ্চনা গঞ্জনা শুনে কোন দিন রাত অতিবাহিত করেছে। মাঝে মধ্যে আমার পিতা পাগল বেশে কোথায় চলে যায় তা কেউ জানে না। পার্শ্ববর্তী তালা থানার খলিলনগর ইউনিয়নের মাছিয়াড়া গ্রামে স্থায়ী ঠিকানা হলেও আমাদের জন্ম স্থান নাছিরপুর নানীর বাড়ী। সে অবধি পরের বাসায় কাজ করে খাওয়া বৃদ্ধা নানীর কাছে বড় হয়ে প্রায় ১০ বছর যাবত মানুষের বাথ রুমের ট্যাংকির ছাছের উপর বসবাস করছি। আমার পরিবারের লোক সংখ্যা চার জন এবং আমি এক মাত্র উপার্জনকারী ব্যক্তি, সারাদিন মানুষের কামলা দিয়ে দিন প্রতি তিন থেকে তিনশত পঞ্চাশ টাকা উপার্জন করি, যা দিয়ে আমার পরিবারের লোকজন নিয়ে কোন রকমে জীবন যাপন করি। বর্তমান বর্ষা মৌসুমে উক্ত ঘরের সামনে প্রচন্ড কাঁদা ছোট বাচ্চাটি কাঁদা মাটি মেখে অসুস্থ্য হয়ে পড়েছে, তাকে নিয়ে ওর মা সার্বক্ষনিক কে নিয়ে এখানে ওখানে নিয়ে দিন পার করছে। আমার এই সামান্য উপার্জিত অর্থ দিয়ে জায়গার ভাড়া দিতে পারি না, বোনকে স্কুলে পাঠাতে পারি নি। আস্তে আস্তে বিবাহ যোগ্য হয়ে উঠছে। কোথায় থাকতে দেবো, কিভাবে বিয়ে দেবো, কোন ঠিকানা নাই, সার্বক্ষণিক সে চিন্তা আমাকে তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে। কোন ক্রমেই আমার পক্ষে এক খন্ড জমি ক্রয় বা থাকার ঘর তৈরী করা সম্ভব না। সে আক্ষেপ করে এ প্রতিনিধিকে জানায়, লোকজন মারফত জানিতে পেরেছি, মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে পুর্নবাসনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা মানবতার মা শেখ হাসিনা জমি ও ঘর উপহার দিচ্ছেন। ইউএনও স্যারের মাধ্যমে বহু মানুষ ইতিমধ্যে জমি ও ঘর পেয়েছে, তারা সেখানে বসবাস করছে, আপন ঠিকানা পেয়েছে। অনেকে জমি ও ঘর পেলেও সেখানে বসবাস করে না পতিত অবস্থায় আছে। আর আমি জমি ও ঘরের অভাবে মানবেতর জীবণ যাপন করছি। আমার কোন ঠিকানা নাই। আমি স্থানীয় অনেকের কাছে বলেছি কিন্তু কেউ আমার দুঃখ কষ্ট বোঝেনি। একজন অসহায় গৃহহীন ও ভূমিহীন অসহায় মানুষ তাই ইউএনও স্যারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে মাথা গুজার ঠাঁই চাই। তা না হলে খোলা আকাশের নীচে থাকা ছাড়া উপায় থাকবে না।

এ ব্যাপারে হাফিজুল মোড়ল সৎ, বিচক্ষন ও একজন মানবিক অফিসার পাইকগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সুদৃষ্টি কামনা করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x