ঢাকা, রবিবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৭:০৭ পূর্বাহ্ন
গাইবান্ধায় নিম্নবৃত্ত মানুষের ‘কোরবানি হবে’ খাঁসি দিয়ে
সুমন কুমার বর্মন, গাইবান্ধা প্রতিনিধি

চলমান লকডাউনে নিম্নবৃত্ত অনেক মানুষের ঘরে এবার কোরবানির পশু গরু জবাই হবে না। বিগত বছরগুলোতে কোরবানি দিলেও এ বছর তারা অনেকেই তা দিতে পারছেন না। তবে লোকলজ্জায় এদের কেউই মুখ খুলছেন না।

এসব নিম্নবৃত্ত আয়ের অনেক মানুষের ঘরে গরুর গোস্ত না থাকলেও তারা বিকল্প হিসেবে খাঁসি বেছে নিয়েছেন। তাই বাজারে এখন খাঁসির চাহিদা তুঙ্গে। নিম্নবৃত্ত আয়ের পাশাপাশি অনেক মধ্যবিত্ত পরিবারের লোকজনও কোরবানি দিতে পারছেন না বলে জানা গেছে। গাইবান্ধা সদর উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজার ঘুরে দেখা যায়, হাটে প্রচুর পরিমাণে খাঁসি বিক্রি হচ্ছে। পরিবারের কথা চিন্তা করে ও শিশুদের মাংসের চাহিদা পূরণের জন্য খাঁসি কোরবানি দিচ্ছেন এবার তারা। মাঝারি সাইজের প্রতিটি খাঁসি বিক্রি হচ্ছে ৭/৮ হাজার টাকায় বড় খাঁসি বিক্রি হচ্ছে ১৫/১৮ হাজার টাকায়।

এ বছর কোরবানি না দেওয়া কয়েকজনের (নাম না প্রকাশের শর্তে) সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, কোরবানি দেওয়ার মতো অর্থ নেই তাদের হাতে। অনেকেরই রোজগার বন্ধ হয়ে গেছে। কোনোরকম খেয়ে-

পরে বেঁচে থাকলেও কোরবানি দেওয়ার মতো সামর্থ্য নেই। তাই তারা এবার খাঁসি কোরবানির দিকেই ঝুঁকছেন। কেউ কেউ বলছেন, বিগত বছর কোরবানি দিয়েছেন, তখন সামর্থ্য ছিল- এ বছর সামর্থ্য নেই, তাই কোরবানি দিচ্ছি না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x