ঢাকা, শুক্রবার ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:২১ পূর্বাহ্ন
রংপুরে করোনা হাসপাতালে আইসিইউতে বেড ফাঁকা নাই নোটিশ ঝুঁলানো
হীমেল মিত্র অপু, স্টাফ রিপোর্টার

রংপুর বিভাগে করোনা সংক্রমণ বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। প্রতিদিনই বাড়ছে সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার। বিভাগে করোনায় সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হচ্ছে ভারতীয় সীমান্তবর্তী জেলা দিনাজপুরে তারপরে রংপুর ও তৃতীয় অবস্থানে ঠাকুরগাঁও।

রংপুর বিভাগে বিশেষায়িত করোনা আইসোলেশন হাসপাতালে করোনা রোগীদের জন্য নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) কোনও বেড খালি নেই। করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য বিশেষায়িত এই হাসপাতালের সবগুলো আইসিইউ বেডেই রোগী ভর্তি রয়েছে।

শুক্রবার (২ জুলাই) আইসিইউ বেড খালি না থাকার একটি নোটিশ ঝুলিয়ে দিয়েছে রংপুর ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালের কর্তৃপক্ষ। নোটিশে বলা হয়েছে আইসিইউ’তে কোন বেড খালি নাই।

রংপুরের এ হাসপাতালে ১০ টি আইসিইউ বেড থাকলেও ভেন্টিলেটর সুবিধা আছে ৮ টিতে। যেখানে ৮৩ জন কোভিড রোগীকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। গত বছরে নগরীতে নবনির্মিত ১০০ শয্যার রংপুর শিশু হাসপাতালকে ডেডিকেটেড করোনা আইসোলেশন হাসপাতাল হিসেবে চালু করা হয়। প্রথম ধাপে ১০টি আইসিইউ বেড ও ১০টি ভেন্টিলেটর দিয়ে কার্যক্রম শুরু হলেও পর্যায়ক্রমে তা ৫০ বেডে উন্নীত করার কথা ছিল। কিন্তু পরবর্তীতে আর কোনো আইসিইউ বেড বাড়ানো হয়নি।

রংপুর বিভাগের আট জেলায় দেড় কোটি মানুষের জন্য আইসিইউ বেড রয়েছে মাত্র ৪৬ টি। এরমধ্যে রংপুর ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালে ১০টি, রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ২০টি, দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে আছে ১৬টি আইসিইউ বেড।

রংপুর বিভাগে করোনা সংক্রমণ বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। প্রতিদিনই বাড়ছে সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার। বিভাগে করোনায় সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হচ্ছে ভারতীয় সীমান্তবর্তী জেলা দিনাজপুরে তারপরে রংপুর ও তৃতীয় অবস্থানে ঠাকুরগাঁও।

রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক অফিস সূত্রে জানা গেছে, রংপুর বিভাগে করোনা সংক্রমণ মারাত্মক রূপ নিয়েছে। করোনা সংক্রমণের হার ৪০ শতাংশ। রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) ডা.আবু মোহাম্মদ জাকিরুল ইসলাম বলেন, বিভাগে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ উদ্বেগজনক বাড়ছে। আইসিইউ সংকট মোকাবেলায় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x