ঢাকা, শনিবার ২০ এপ্রিল ২০২৪, ১১:০৩ অপরাহ্ন
করোনা পরিস্থিতিতে কোরবানির পশু বিক্রি নিয়ে শঙ্কায় খামারিরা
অনলাইন ডেস্ক

করোনার কারণে কোরবানির পশু বিক্রি নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন প্রান্তিক পর্যায়ের খামারিরা। তাদের সঙ্গে মৌসুমি ব্যবসায়ীরাও আর্থিক ক্ষতির আশঙ্কা করছেন।

বিশেষ করে যারা কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে একটি বা চার-পাঁচটি গরু পালন করেছেন, তারা এ বছর উপযুক্ত দামে গরু বিক্রি নিয়ে সংশয়ে আছেন

ঈদের আর বাকি মাত্র ১৭-১৮ দিন। অথচ অন্যান্য বছরের মতো এখন পর্যন্ত দেখা নেই ব্যাপারীদের। কোরবানিযোগ্য পশুপালনকারী খামারিদের প্রত্যাশা ছিল, ঈদের আগে হাটে পশু বিক্রি করে মুনাফা করবেন। কিন্তু তাদের জন্য ক্ষতির আশঙ্কা তৈরি করেছে মহামারি করোনাভাইরাস।

তারা বলেছেন, প্রতিবছর কোরবানির হাট শুরুর মাস দেড়েক আগে থেকেই দেশের বিভিন্ন এলাকার গরুর ব্যাপারীরা এসে বাড়ি বাড়ি ঘুরে গরু কেনা শুরু করেন। তবে করোনা পরিস্থিতিতে এবার গরু কেনায় আগ্রহ দেখা যাচ্ছে না ব্যাপারীদের মধ্যে।

তাদের দাবি, করোনার কারণে বিগত বছরের চেয়ে সব পণ্যের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। সে অনুযায়ী, গরুর দামও বেশি হওয়ার কথা। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে জেলার সব পশুহাট বন্ধ রয়েছে। ফলে গরু বিক্রি নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন তারা।

এদিকে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের তথ্য অনুযায়ী, এবারের কোরবানির জন্য চুয়াডাঙ্গা জেলায় ১ লাখ ১২ হাজার ৯৫৫টি গবাদিপশু প্রস্তুত রয়েছে। এরমধ্যে গরু ২৯ হাজার ৭৫০টি, মহিষ ১৮৯টি, ছাগল ৮২ হাজার ২৩৬টি ও ভেড়া ৭৮০ টি রয়েছে। এগুলোর মধ্যে সদর উপজেলায় ২১ হাজার ৬১৩টি, আলমডাঙ্গায় ৩৮ হাজার ৭৮১টি, দামুড়হুদায় ২৬ হাজার ৪৮৫টি ও জীবনগরে ২৬ হাজার ৭৬টি পশু রয়েছে।

জীবননগরের এক খামারি বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতিতে পশু বিক্রি করে ন্যায্যদাম পাওয়া নিয়ে চিন্তায় আছি। কারণ একটি গরুর জন্য দিনে ১৩০-১৫০ টাকা খরচ হয়। প্রতিদিন গরুগুলোকে খৈল, ভুসি, কুড়ো ও কাঁচা ঘাস দিতে হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘এবার গরু বিক্রি করে লাভ করতে পারবো কি-না তা নিয়ে চিন্তায় আছি। কিন্তু পশু বিক্রি না করতে পারলে সাত-আটমাস ধরে খাটানো টাকার অনেকটাই লোকসানে যাবে। পরের কোরবানি পর্যন্ত এসব পশুপালনে অনেক টাকা খরচ হবে।’

সদর উপজেলার এক খামারি বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতিতে মানুষের আয় কমে যাওয়ায় কোরবানির পশুর চাহিদাও অনেক কমে গেছে। অনেকে আবার স্বাস্থ্যবিধির কারণে পশু কেনা থেকে বিরত থাকছেন। ফলে এবার গরুর বাজার নিয়ে আতঙ্কের মধ্যে আছি।’

দামুড়হুদার এক খামারি বলেন, ‘এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে তিনটি গরু কিনে বাড়িতে পালন করেছি। তবে গরুগুলো বিক্রি হবে কি-না এ নিয়ে শঙ্কায় রয়েছি। কারণ করোনা পরিস্থিতিতে মানুষের আর্থিক অবস্থা ভালো নেই। এবার কোরবানি কম হতে পারে।’

চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. গোলাম মোস্তফা বলেন, ‘জেলার বিভিন্ন গ্রামে কোরবানি উপলক্ষে গরুপালন করে থাকেন খামারিরা। তবে এখন পর্যন্ত বাজার ভালো আছে। আমাদের পক্ষ থেকে পশুপালনকারীদের প্রাকৃতিকভাবে পশু মোটাতাজাকরণে পরামর্শ দেয়া হয়েছে। খামারিরা সেভাবে পশুপালন করেছেন। প্রাকৃতিক উপায়ের তুলনায় রাসায়নিকভাবে মোটাতাজা করলে খরচ বেশি হয় এবং ঝুঁকিও থাকে। গ্রামপর্যায়ে পশু পালনকারীরা এসব বুঝতে পেরেছেন। করোনা মহামারির মধ্যে আমাদের কার্যক্রম একদিনের জন্যও থেমে থাকেনি।’

5 responses to “করোনা পরিস্থিতিতে কোরবানির পশু বিক্রি নিয়ে শঙ্কায় খামারিরা”

  1. brainsclub says:

    … [Trackback]

    […] Info to that Topic: doinikdak.com/news/31484 […]

  2. … [Trackback]

    […] Read More here to that Topic: doinikdak.com/news/31484 […]

  3. 뉴토끼 says:

    … [Trackback]

    […] Information to that Topic: doinikdak.com/news/31484 […]

  4. … [Trackback]

    […] Read More on to that Topic: doinikdak.com/news/31484 […]

  5. … [Trackback]

    […] Find More on that Topic: doinikdak.com/news/31484 […]

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x